1. admin@ammarpluspnewschannel.com : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আ.লীগ সরকার মানুষের রক্ত চুষে খাচ্ছে : রেজা কিবরিয়া জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পার্টির নেতাকে হুমকি, থানায় জিডি রকি নামে এক পোল্ট্রি মুরগির ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের জীবন অতিষ্ঠ বললেন- সালমা ইসলাম এমপি নারায়ণগঞ্জে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ, নিহত ১ গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে শত্রুতা করে কৃষকের ২০০ লাউ গাছ কেটে ফেলেছে দৃর্বৃত্তরা সরকার গঠন করতে ১৫১ আসনে জয় পেতে হয়, ১৫০ আসনে ইভিএমে ভোট নেওয়ার সিদ্ধান্ত উদ্দেশ্য প্রণোদিত নাটোরে স্ত্রীর মৃত্যুর ১২ ঘণ্টা পর চলে গেলেন স্বামীও এক ব্যাক্তির হাতে সকল ক্ষমতা থাকলে গণতন্ত্র চর্চা সম্ভব নয় – জি,এম কাদের গোপালগঞ্জে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

মাথাপিছু আয়ের বাস্তব চিত্র?? গরীবের বাজারটিতে এখন আর দশ টাকা তেল নাই”

  • আপডেট সময় : বুধবার, ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
  • ১০৭ বার পঠিত

 

অনলাইন ডেস্কঃ

“মাথাপিছু আয়ের বাস্তব চিত্র?? গরীবের বাজারটিতে এখন আর দশ টাকা তেল নাই”

ভোজ্যতেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে সীমিত আয়ের মানুষ। যাঁদের এক লিটার, পাঁচ লিটারের তেলের বোতল কেনার সামর্থ্য নেই, তাঁরা অল্প পরিমল কিনে কাজ চালিয়ে নেন। মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ের তেজকুনিপাড়ায়
ভোজ্যতেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে সীমিত আয়ের মানুষ। যাঁদের এক লিটার, পাঁচ লিটারের তেলের বোতল কেনার সামর্থ্য নেই, তাঁরা অল্প পরিমাণে খোলা তেল কিনে কাজ চালিয়ে নেন। ঢাকার বিজয় সরণি থেকে তেজগাঁওয়ের দিকে যেতে উড়ালসড়কের নিচে বাজারটি। রেললাইনের পাশে গড়ে উঠেছে বলে নাম রেলওয়ে মার্কেট কাঁচাবাজার।

বাজারটির ক্রেতারা মূলত নিম্ন আয়ের। কেউ রিকশাচালক, কেউ দোকানের কর্মী, কেউ তেজগাঁও শিল্প এলাকার কারখানার শ্রমিক। তাই স্থানীয়ভাবে বাজারটি পরিচিত গরিবের বাজার বলে। এই বাজারের ক্রেতাদের ফর্দে সাধারণত আধা কেজি বা এক কেজি চাল, ১০ টাকার ভোজ্যতেল, ১০ টাকার ডাল, ৫ টাকার পেঁয়াজ—এসবই থাকে। ক্রেতার সামর্থ্য বুঝে দোকানিরা ছোট ছোট পুঁটলিতে সেই অনুযায়ী তেল, ডাল মোড়কজাত করে রাখেন।

রেলওয়ে বাজারের দোকানিরা তেলের ন্যূনতম পরিমাণের দাম ১০ টাকা থেকে ২০ টাকায় উন্নীত করার আগে অনেক দিন অপেক্ষায় ছিলেন। তাঁরা আশায় ছিলেন, দাম কমবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, দাম কমছে না; বরং বাড়ছে।
মাস দুই-তিন হলো এই বাজারে ন্যূনতম দামে বড় একটি পরিবর্তন এসে গেছে। এখন আর ১০ টাকায় সয়াবিন তেল বিক্রি হয় না। নিতে হয় কমপক্ষে ২০ টাকার। পরিমাণ বেড়েছে, তা নয়; বেড়েছে দাম।

তেজগাঁওয়ের একটি কারখানার শ্রমিক সুহেলী আক্তার মঙ্গলবার দুপুরের খাবারের বিরতির ফাঁকে গিয়েছিলেন রেলওয়ে মার্কেট কাঁচাবাজারে। উদ্দেশ্য, রাতের রান্নার জন্য কিছু কিনে রাখা। রাতে ফিরতে ফিরতে সাড়ে ৯টা বেজে যায়। তখন বাজার করে রান্নার সময় থাকে না। রাতে তাড়াতাড়ি না ঘুমালে সকালে ৮টার মধ্যে আবার কারখানায় যাওয়া যায় না।

গরিবের বাজার বলে পরিচিত ঢাকার রেলওয়ে মার্কেট বাজারে ১০ টাকায়ও তেল পাওয়া যেত। এখন বিক্রেতারা মোটামুটি একই পরিমাণ তেল বিক্রি করেন ২০ টাকায়। মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ের তেজকুনিপাড়ায় গরিবের বাজার বলে পরিচিত ঢাকার রেলওয়ে মার্কেট বাজারে ১০ টাকায়ও তেল পাওয়া যেত। এখন বিক্রেতারা মোটামুটি একই পরিমাণ তেল বিক্রি করেন ২০ টাকায়। মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ের তেজকুনিপাড়ায়
তাড়াহুড়ার মধ্যে সুহেলী ১৬০ টাকার বাজার করলেন। সবজি ৩০ টাকার—১০ টাকার শিম, ১০ টাকার মুলা ও ১০ টাকার টমেটো। চাল কিনলেন দুই কেজি, দাম ১০০ টাকা। মোটা দানার মসুর কিনলেন এক পুঁটলি, পরিমাণ ১০০ গ্রাম, দাম ১০ টাকা। আর খোলা সয়াবিন তেল কিনলেন ২০ টাকা দিয়ে।

দেশে গত দুই বছরে অনেকটা লাফিয়ে লাফিয়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। ভোজ্যতেল ছাড়িয়ে গেছে সবকিছুকেই। ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) হিসাবে, ২০১৯ সালে খোলা সয়াবিন তেলের গড় দাম ছিল প্রতি লিটার ৮৮ টাকা। সেই দাম ৬৩ শতাংশ বেড়েছে। গত সোমবারই কোম্পানিগুলো খোলা সয়াবিনের দাম লিটারে ৭ টাকা বাড়িয়ে ১৪৩ টাকা নির্ধারণ করেছে।
তেল কেনার সময়ই সুহেলীর সঙ্গে দেখা। জানতে চাইলে তিনি আম্মার প্লাস পি নিউজ চ্যানেল অনলাইন কে বলেন, ‘আগে ১০ টাকা দিয়া যে তেল পাওয়া যাইত, সে তেল এহন ২০ টাকা দিয়া কেনা লাগছে।’

শুধু তেলের দাম নয়, সুহেলী বাজার পরিস্থিতিও তুলে ধরলেন। বললেন, ‘দুই বেলা খাওনে যা যা লাগে, সবকিছুরই দাম বেশি। করোনার চেয়েও এহন আরও বেশি কষ্টে আছি।’

করোনাকালের দুই বছর
দেশে গত দুই বছরে অনেকটা লাফিয়ে লাফিয়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। ভোজ্যতেল ছাড়িয়ে গেছে সবকিছুকেই। ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) হিসাবে, ২০১৯ সালে খোলা সয়াবিন তেলের গড় দাম ছিল প্রতি লিটার ৮৮ টাকা। সেই দাম ৬৩ শতাংশ বেড়েছে। গত সোমবারই কোম্পানিগুলো খোলা সয়াবিনের দাম লিটারে ৭ টাকা বাড়িয়ে ১৪৩ টাকা নির্ধারণ করেছে।

এই বাজারে তো বেশি (পরিমাণে) কেনার লোক নাই। কিন্তু তেল আর ১০ টাকায় বেচা যায় না।
আয়েশা বেগম, মুদি দোকানি, রেলওয়ে মার্কেট কাঁচাবাজার ক্যাবের হিসাবে, ২০১৯ সালে মোটা দানার মসুর ডালের গড় দাম ছিল প্রতি কেজি ৯০ টাকা। এখন সেটা ১০০ টাকা দরে বিকাচ্ছে বাজারে। দোকানিদের এক কথা, ‘নিলে নেন, না নিলে না নেন, দাম কমানো সম্ভব নয়।’ আর মোটা চাল ছিল ৪০ টাকা কেজি। এখন ছোট বাজারে তা ৫০ টাকা দিয়ে কিনতে হয়।

অর্থনীতিবিদেরা সব সময় বলেন, গরিব মানুষের খাদ্য ব্যয়ের বড় অংশজুড়ে থাকে চাল, ডাল ও ভোজ্যতেল। এগুলোর দাম বাড়লে তাদের কষ্ট বাড়ে। কারখানার শ্রমিক সুহেলী যেন সেই কষ্টের কথাই বলছিলেন। সপ্তাহে ছয় দিন সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কারখানায় কাজ করেও তাঁর সংসার চলছে কষ্টে।

‘দাম তো কমছেই না’
রেলওয়ে বাজারের দোকানিরা তেলের ন্যূনতম পরিমাণের দাম ১০ টাকা থেকে ২০ টাকায় উন্নীত করার আগে অনেক দিন অপেক্ষায় ছিলেন। তাঁরা আশায় ছিলেন, দাম কমবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, দাম কমছে না; বরং বাড়ছে।

নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য ছোট ছোট প্যাকেটে রাখা ডাল, মসলাসহ নিত্যপণ্য।

মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ের তেজকুনিপাড়ায়
নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য ছোট ছোট প্যাকেটে রাখা ডাল, মসলাসহ নিত্যপণ্য।

তেজগাঁওয়ের এই বাজারে ছোট্ট একটি মুদিদোকান আয়েশা বেগমের। স্বামীহারা আয়েশার দোকানে বিভিন্ন ধরনের ডাল, ছোলা, চিনি, মসলা ও লবণ—সবকিছুর পুঁটলি ১০ টাকা। শুধু সয়াবিন তেলের পুঁটলি ২০ টাকা।

আয়েশা আম্মার প্লাস পি নিউজ চ্যানেল অনলাইন কে বলেন, কারওয়ান বাজার থেকে খোলা সয়াবিন তেল ১৬৫ টাকা কেজি দরে কিনে নিয়ে ১৭০ টাকা হিসাব ধরে বিক্রি করেন। এ দরে ১০০ মিলিলিটার তেলের দাম হয় ১৭ টাকা। পরিমাণে কিছুটা বাড়িয়ে দিয়ে ছোট এক পুঁটলি তেল ২০ টাকায় বিক্রি করেন তিনি।

জানতে চাইলে আয়েশা বলেন, ‘এই বাজারে তো বেশি (পরিমাণে) কেনার লোক নাই। কিন্তু তেল আর ১০ টাকায় বেচা যায় না।’

বিভিন্ন জরিপে উঠে এসেছে, করোনাকালে মানুষের আয় কমেছে। বিপরীতে বেড়েছে ব্যয়। তাই আয় কাঠামোর নিচের শ্রেণিতে থাকা মানুষ কৃচ্ছ্রসাধনে ব্যস্ত। সহজ ভাষায় যাকে খরচ কমানো বলা যায়।

যেমন তেজগাঁওয়ের তেজতুরী বাজারের বাসিন্দা মো. আকাশ দুই সন্তানকে গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছেন। স্ত্রী ও নিজে ঢাকায় থেকে কাজ করেন। নিজের একটি চুল কাটার সেলুন আছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে তাঁর ব্যবসাটি ভালো চলছে না।

নিম্ন আয়ের মানুষের বাজার ব্যয়ের বড় অংশই যায় চাল, ডাল ও তেলের পেছনে।
এক ক্রেতা ২০ টাকার তেল নিয়ে ফিরছেন।

তাঁর ভাষ্য, করোনার মধ্যে মানুষের আয় কমে যাওয়ায় ঘন ঘন চুল-দাড়ি কাটাচ্ছেন না। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিশুদের নিয়মিত চুল কাটানোর তাগিদ নেই। বয়স্করা করোনার ভয়ে ঘর থেকে বের হন না।

নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষের ব্যয় নানাভাবে বেড়েছে। রিকশাচালক কালাম হোসেন বলছিলেন, মালিক রিকশার দৈনিক জমা ২০ টাকা বাড়িয়ে ১২০ টাকা করেছেন।

এদিকে সরকারি সংস্থাগুলো পানি, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Ammar Plus P News Channel
Theme Customized By Theme Park BD