1. admin@ammarpluspnewschannel.com : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আ.লীগ সরকার মানুষের রক্ত চুষে খাচ্ছে : রেজা কিবরিয়া জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পার্টির নেতাকে হুমকি, থানায় জিডি রকি নামে এক পোল্ট্রি মুরগির ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের জীবন অতিষ্ঠ বললেন- সালমা ইসলাম এমপি নারায়ণগঞ্জে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষ, নিহত ১ গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে শত্রুতা করে কৃষকের ২০০ লাউ গাছ কেটে ফেলেছে দৃর্বৃত্তরা সরকার গঠন করতে ১৫১ আসনে জয় পেতে হয়, ১৫০ আসনে ইভিএমে ভোট নেওয়ার সিদ্ধান্ত উদ্দেশ্য প্রণোদিত নাটোরে স্ত্রীর মৃত্যুর ১২ ঘণ্টা পর চলে গেলেন স্বামীও এক ব্যাক্তির হাতে সকল ক্ষমতা থাকলে গণতন্ত্র চর্চা সম্ভব নয় – জি,এম কাদের গোপালগঞ্জে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

মসজিদে ১৪৪ ধারা জারি,ঈদের জামাত নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধ

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৩ মে, ২০২২
  • ৪০ বার পঠিত

 

অনলাইন ডেস্কঃ

মসজিদে ১৪৪ ধারা জারি, ঈদের জামাত নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধ। টাঙ্গাইল মির্জাপুর উপজেলার ভাওড়া ইউনিয়নের ভাওড়া সরকার পাড়া জামে মসজিদ ও তার ৪০০ গজ পরিসীমার মধ্যে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। ফলে সেখানে অনুষ্ঠিত হয়নি ঈদের জামাত।

মঙ্গলবার ভোর ৫ টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত বলবত থাকবে ১৪৪ ধারা।

গতকাল সোমবার মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাফিজুর রহমান ১৪৪ ধারা জারি করেন। মসজিদ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভাওড়া সরকার পাড়া জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটি নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে দুটি পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুই কমিটির পক্ষ থেকে দুইজন ইমামও নিয়োগ দেয়া হয়েছে। দুই কমিটি ও দুই ইমামের বিষয়ে গ্রামটিতে দীর্ঘদিন যাবত মতবিরোধ চলে আসছে। গতকাল সোমবার বাদ এশা মসজিদের ভেতর সভা করে দুই কমিটির পক্ষ থেকে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ে আলাদা জামাতের আয়োজন করা হয়।

এক কমিটি সকাল সাড়ে সাতটা ও আরেক কমিটি সকাল সাড়ে আটটায় সময় নির্ধারণ করেন। এ নিয়ে ওই এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে রাত এগারোটার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলম চাঁদ ও ইউপি চেয়ারম্যান মো. আমজাদ হোসেন ভাওড়া সরকার পাড়া মসজিদে যান। সেখানে দুই পক্ষের সাথে আলাপ করে শান্তিপুর্ণ অবস্থায় থেকে এক জামাতে নামাজ আদায়ের নির্দেশ দেন। এক পক্ষের সাহাদত হোসেন, লেবু মিয়া ও পিন্টু গং রাজি না হওয়ায় উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

পরে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বজায় রেখে দুই জামাতে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ের সিদ্ধান্ত হয়। প্রশাসনের লোকজন চলে আসার পর ফের উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

নামাজকে কেন্দ্র করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির শঙ্কা থাকায় ফৌজদারি কার্যবিধি ১৪৪ (১) ধারার ক্ষমতাবলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান রাত পৌনে বারোটার দিকে ১৪৪ ধারা জারি করেন।

ভাওড়া গ্রামের বাসিন্দা আল মামুন খান বলেন, মসজিদ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে ভাওড়া নয়াপাড়া মসজিদে গিয়ে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করেছি।

ভাওড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আমজাদ হোসেন বলেন, শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ওই এলাকায় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেছে। এ কারণে ওই মসজিদে ঈদুল ফিতরের জামাত হয়নি।

মির্জাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মোস্তফা হোসেন জানান, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Ammar Plus P News Channel
Theme Customized By Theme Park BD